1. admin@dailyswadhinbangladesh.com : admin :
  2. n.ganj.jasim@gmail.com : স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট : স্বাধীন বাংলাদেশ রিপোর্ট
  3. reduanulhoque11@gmail.com : reduanulhoque :
  4. sohag42000@gmail.com : sohag42000 :
সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ১১:১৬ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :

‘১০ ডিসেম্বর’ প্রতিটি জেলায় মানববন্ধনের ডাক ** বিএনপির নারায়ণগঞ্জে বড় চ্যালেঞ্জে বিএনপি নেতাকর্মীরা

ডেস্ক রিপোর্ট:
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০২৩

বিভিন্ন দাবিতে দীর্ঘ ১মাসের বেশি সময় ধরে দফায় দফায় চলছে বিএনপির হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি। যা পালন করতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জে গ্রেফতার হয়েছে দলটির শত শত নেতাকর্মী। আর মামলায় আসামী হয়েছে হাজার হাজার। বর্তমানে অবরোধ পালন করতেও নানান সমস্যায় পরতে হচ্ছে বিএনপি নেতাকর্মীদের। বেশির ভাগ শীর্ষ নেতারা হয়তো জেলে, না হয় পালাতক। তবুও সতর্কতার সাথে জেলার বিভিন্ন স্থানে কিছুক্ষনের জন্য অবরোধ সমর্থনে বিক্ষোভ মিছিল করছে দলটির নেতাকর্মীরা।
কঠিন এমন এক সময়ের মধ্যে বড় ধরনের চ্যালেঞ্জের সম্মুখিন হতে যাচ্ছে বিএনপির নেতাকর্মীরা। দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের তফসিল বাতিল, খালেদা জিয়াসহ বিরোধী নেতাকর্মীদের মুক্তি এবং সরকার পতনের এক দফা দাবিতে আগামী রোববার (১০ ডিসেম্বর) আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবস উপলক্ষে ঢাকাসহ সারাদেশে জেলা সদরে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করার ঘোষণা দিয়েছে বিএনপি। প্রশ্ন উঠছে, সিনিয়র নেতাদের অনুপস্থিতি ও নেতাকর্মীদের গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যে থেকে নারায়ণগঞ্জে মানববন্ধন কর্মসূচি কিভাবে সফল করবে বিএনপি?

জানা গেছে, গত ২৮ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশ পণ্ড হওয়ার ঘটনার প্রতিবাদে ২৯ অক্টোবর সারাদেশে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল দেয় বিএনপি। এরপর গত ৩১ অক্টোবর থেকে সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় সরকারের অধীন নির্বাচন এবং দলের গ্রেফতার নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে নিয়মিত বিরতিতে ধারাবাহিকভাবে হরতাল-অবরোধ কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে বিএনপি। আজ (৫ ডিসেম্বর) পর্যন্ত ৯ দফা অবরোধ ও দুই দফা হরতালের ডাক দিয়েছে দলটি। যাতে নারায়ণগঞ্জের ৭টি থানায় ২০টির বেশি মামলা দায়ের করা হয়। সর্বশেষ তথ্য মতে, এসকল মামলায় গ্রেফতার হয় ৫২০জনর নেতাকর্মী। আত্মগোপনে চলে যায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনেরর বহু শীর্ষ নেতৃবৃন্দ। বিএনপির শীর্ষ নেতাদের দাবি, আগেও বিএনপির নেতাকর্মীরা গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যে থেকে বিভিন্ন সভা সমাবেশ সফল করেছে। আর এবারও তাই করবে। বিগত দিনে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে বিশাল বিশাল জমায়েত করে কর্মসূচি পালন করেছে বিএনপি। ১০ বছর পর নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সম্মেলনও করেছে দলটির নেতাকর্মীরা। যাতে নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি হন সাবেক এমপি মুহাম্মদ গিয়াসউদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক হন গোলাম ফারুক খোকন। তাদের নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জসহ ঢাকায় গিয়েও বিভিন্ন সভা সমাবেশ সফল করেছে জেলা বিএনপি ও এর আওতাধীন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা। অন্যদিকে, মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খান ও সদস্য সচিব এড. আবু আল ইউসুফ খান টিপুর নেতৃত্বে নারায়ণগঞ্জ শহরের বড় আকাড়ে বিভিন্ন সভা-সমাবেশ পালন করেছে মহানগর বিএনপি ও এর আওতাধীন অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। সম্প্রতি অবরোধ কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে নারায়ণগঞ্জ কেন্দ্রীয় লঞ্চঘাট এলাকা থেকে গ্রেফতার হয়েছেন এড. টিপু। আর মামলায় জর্জরিত হয়ে অন্য তিন শীর্ষ নেতৃবৃন্দ রয়েছেন আত্মগোপনে। এদিকে, প্রশাসনের অনুমতি ছাড়া মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করতে চাইলে বাঁধার মুখে পরতে পারে বিএনপির মানববন্ধন কর্মসূচি। যাতে করে রয়ে যায় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা। এবিষয়ে কথা হয় নারায়ণগঞ্জ মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক এড. সাখাওয়াত হোসেন খানের সাথে। তিনি বলেন, আমরা একটি স্বৈরাতান্ত্রিক সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করছি, মানুষের ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য। সেই আন্দোলন করতে গিয়ে যত বাঁধাই আসুক, আমরা রাজপথে থাকবো এবং আমাদের কেন্দ্রীয় সকল কর্মসূচি আমরা পালন করবো। বিএনপির অজস্র নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে, হাজার হাজার নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জনগনকে জিম্মি করে একটি পাতানো নির্বাচন করার চেষ্টা করা হচ্ছে। সেই নির্বাচন প্রতিহত করে একটি সুষ্ঠ গণতান্ত্রীক পরিবেশ সৃষ্টি করার জন্য যে আন্দোলনের ডাক দেয়া হয়েছে; যত কষ্টই হোক আমরা সেই কর্মসূচি পালন করবো। আমাদের সকল প্রোগ্রামে গ্রেফতার আতঙ্কের মধ্যে থেকেই নেতাকর্মীরা অংশ নেয় এবং এবারও নিবে। আমরা মানববন্ধনে সর্বোচ্চ উপস্থিতি রাখার চেষ্টা করবো।

Facebook Comments Box
এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © দৈনিক স্বাধীন বাংলাদেশ

প্রযুক্তি সহায়তায় Shakil IT Park